যোগীরাজ্যে কার্যকর সিএএ, ৩২ হাজার শরণার্থী চিহ্নিত, কেন্দ্রকে পাঠানো হল তালিকা

296

ওয়েব ডেস্ক, ১৪ জানুয়ারিঃ নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনকে কেন্দ্র দেশজুড়ে প্রতিবাদ-বিক্ষোভ চলছেই। এরমধ্যেই উত্তরপ্রদেশে শুরু হল সিএএ লাগু করার প্রক্রিয়া। যোগী রাজ্যের ১৯টি জেলার শরণার্থীদের একটি তালিকা তৈরি করা হয়েছে। সেই তালিকা পাঠানো হয়েছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রককে।

জানা গিয়েছে, ওই তালিকায় ৩২ হাজার মানুষের নাম রয়েছে। যাদের মধ্যে বেশিরভাগ হল বাংলাদেশ থেকে পালিয়ে আসা হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষ। উত্তরপ্রদেশের মোট ১৯টি জেলার ৩২ হাজার মানুষের তালিকা তৈরি করে পাঠানো হয়েছে অমিত শাহের দফতরে।

এ বিষয়ে আগেই উত্তরপ্রদেশের অতিরিক্ত স্বরাষ্ট্র সচিব অবিনাশ আওয়াস্থি  জানিয়েছিলেন, দশকের পর দশক ধরে যেসব সংখ্যালঘু শরণার্থী পাকিস্তান, আফগানিস্থান এবং বাংলাদেশ থেকে ভারতে এসে রয়েছেন, তাঁদের তালিকা করে ভারতের নাগরিকত্ব প্রদান করা হবে। তিনি বলেছিলেন, দেশের মধ্যে উত্তরপ্রদেশ হবে প্রথম রাজ্য যারা সিএএ নিজেদের রাজ্য কার্যকর করবে। যদিও এই তালিকায় নজর দেওয়া হবে সেই সব শরণার্থীদের বিষয়টি, যারা আইনত ভারতে এসে রয়েছেন।আওয়াস্থি আরও বলেছিলেন, উত্তরপ্রদেশের লখনউ, হাপুর, রামপুর, শাহজাহানপুর, নয়ডা এবং গাজিয়াবাদে এই ধরনের শরণার্থীদের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি। যদিও মুসলিম শরণার্থীদের বিষয়ে কী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে সেই বিষয়ে কিছুই জানানো হয়নি উত্তরপ্রদেশ সরকারের প্রকাশ করা নির্দেশিকায়।

তবে এই ৩২০০০ মানুষকে চিহ্নিত করার কাজ কী পদ্ধতি হয়েছে সে সম্পর্কে কিছু জানানো হয়নি। তবে প্রশাসনের তরফে বলা হয়েছে, সবে এই প্রক্রিয়া চালু হয়েছে। আগামী দিনে এই বিষয়ে একাধিক সংশোধন হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

সিএএ-এর প্রতিবাদে দেশজুড়ে চলা বিক্ষোভ ও হিংসায় সবচেয়ে বেশি মানুষ মারা গিয়েছে যোগী রাজ্যে। এখন পর্যন্ত এর প্রতিবাদে প্রাণ হারিয়ছেন ২৮ জন উত্তরপ্রদেশের বাসিন্দা। যার জেরে যোগী আদিত্যনাথের অঙ্গুলিহেলনে উত্তরপ্রদেশে রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস চলছে অভিযোগে সরব হয়েছে রাজ্যের বিশিষ্ট নাগরিক ও ধর্মগুরুরা। কিন্তু সেসবের তোয়াক্কা না করেই সিএএ নিয়ে শরণার্থীদের তালিকা অমিত শাহের দফতরকে পাঠিয়ে দিল যোগী সরকার।