শনি ও রবি জাঁকিয়ে শীত, সরস্বতী পূজায় বৃষ্টির সম্ভাবনা

199

ওয়েব ডেস্ক, ২৫ জানুয়ারিঃ শীতের বিদায় আসন্ন। তাও যেতে চাইছে না এই শীত। ক্যালেন্ডার অনুসারে এখন মাঘ মাস চলছে। এই অবস্থায় ঘুরে দাঁড়িয়েছে ঠান্ডা। যাই যাই করেও যেতে চাইছেন না শীতবাবু। রয়ে গিয়েছে পিছুটান। তাই যাওয়ার আগে বাঙালিকে এবছরের মতো একটু শেষবার কাঁপিয়ে দিয়ে যেতে চান তিনি। সেই শেষ শীতের ঝাঁকুনিতেই এবার কাঁপতে চলেছে কলকাতা। কারণ আলিপুর আবহাওয়া দফতরের পূর্ভাবাস, শনি আর রবি এই ৪৮ ঘন্টায় পারা পতন ঘটবে প্রায় ৩ডিগ্রি। আর তারপরেই বুধ-বৃহস্পতিবার মিলবে বৃষ্টি।

শুক্র সকালে কলকাতার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছে ১৫.১ ডিগ্রি সেলসিয়াস, যা স্বাভাবিকের থেকে ১ ডিগ্রি কম। হাওয়া অফিসের অনুমান শনি সকালেই তা দেড় থেকে দুই ডিগ্রি নেমে যেতে পারে। রবিবার তা নামতে পারে ১২ ডিগ্রি সেলসিয়াসে। অর্থাৎ ৪৮ ঘন্টার মধ্যে ৩ ডিগ্রি নামবে পারা। সেটাই কলকাতার বুকে কাঁপুনি ধরাতে যথেষ্ট। যদিও এই পারা পতনের জেরে শৈত্যপ্রবাহের কোনও সম্ভাবনা দেখছে না আলিপুর আবহাওয়া দফতর। কারণ সোমবার থেকে আবারও চড়বে পারদ। তারই পিছু পিছু আসবে বৃষ্টিও। দক্ষিণবঙ্গের জেলাগুলিতে পারা ১০ ডিগ্রির আশেপাশেই থাকবে বলে অনুমান করা হচ্ছে। পাশাপাশি আগামী সপ্তাহে অর্থাৎ ২৮ থেকে ৩০ জানুয়ারি জম্মু-কাশ্মীরে একটি পশ্চিমি ঝঞ্ঝা তৈরি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। আবার ওই সময় বঙ্গোপসাগরে ওএকটি বিপরীত ঘূর্ণাবর্তও তৈরি হতে চলেছে। এর ফলে দক্ষিণবঙ্গে প্রচুর পরিমাণে জলীয় বাষ্প ঢুকবে। ঠান্ডা হাওয়া এবং সমুদ্রের জলীয় বাষ্পের সংস্পর্শে তৈরি হবে মেঘ। ফলে ওই সময় বৃষ্টির পূর্বাভাস রয়েছে।

শুক্রবার সকাল থেকেই শীত শীত ভাব। রাতের দিকে পারদ আরও নিম্নমুখী হয়। এ দিন কলকাতার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১৫.১ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যা স্বাভাবিকের থেকে এক ডিগ্রি বেশি। শনিবার সকাল থেকে সমগ্র রাজ্যে নেমেছে তাপমাত্রার পারদ। দার্জিলিঙের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ১.৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস।