কেন্দ্রের চার প্রতিমন্ত্রী পেল রাজ্য, কিন্তু তাতেই কি পাওনা শেষ? প্রশ্ন রাজ্যবাসীর

165

ওয়েব ডেস্ক, ৮ জুলাইঃ বঙ্গ–বিজেপির অঙ্গ শোভায় এখন চার সাংসদ কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী হয়েছেন। আর তাতেই যেন একুশের নির্বাচনের পরাজয়টা ভুলতে চাইছেন রাজ্য বিজেপির নেতারা। নিশীথ প্রামাণিক—স্বরাষ্ট্র, যুব এবং ক্রীড়া বিষয়ক মন্ত্রকের প্রতিমন্ত্রী হয়েছেন। ডাঃ সুভাষ সরকার—শিক্ষা মন্ত্রকের প্রতিমন্ত্রী হয়েছেন। বন্দর, জাহাজ ও জলপথ পরিবহণ মন্ত্রকের প্রতিমন্ত্রী হয়েছেন—শান্তনু ঠাকুর। আর সংখ্যালঘু বিষয়ক মন্ত্রকের প্রতিমন্ত্রী হয়েছেন—জন বার্লা।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর হিসেবে, নিশীথ প্রামাণিকের জন্য পাশে থাকবে কোচবিহার তথা উত্তরবঙ্গের রাজবংশী ভোট। শান্তনু ঠাকুরের জন্য বিজেপিকে সমর্থন দেবে মতুয়া সমাজ। উত্তরবঙ্গের চা–বাগান শ্রমিক, কর্মচারীদের কথা মাথায় রেখেই আলিপুরদুয়ারের সাংসদ জন বার্লার অন্তর্ভুক্তি। আগামী লোকসভা নির্বাচনের সমীকরণে নরেন্দ্র মোদীর মাথায় রয়েছে উত্তরবঙ্গ এবং জঙ্গলমহলের উন্নয়নের ইস্যু। তাই তাঁর মন্ত্রিসভায় নিয়ে আসা হয়েছে বাঁকুড়ার সাংসদ সুভাষ সরকারকে। অর্থাৎ নির্বাচনের বৈতরণী পার হওয়া ছাড়া আর কোনও লক্ষ্য নেই। তাই বাংলা রাজনীতি ছাড়া আর কিছুই পেল না বলে মনে করছেন রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা।

এই চার সাংসদ যে মন্ত্রকের প্রতিমন্ত্রী হয়েছেন সেখান থেকে রাজ্যে বিরাট কোনও বিনিয়োগ আসবে না। কেন্দ্রীয় তহবিলও রাজ্যে আসবে না। বাকি রইল কর্মসংস্থান। তাও এখান থেকে সম্ভব নয়। বরং তাঁদের দিয়ে রাজ্যের কিছু উন্নয়ন আটকে যেতে পারে বলে মনে করছে রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেস। সেটাকেই ফলাও করে দেখিয়ে ভোটের ময়দানে বাজিমাত করা যেতে পারে। আবার কোনও প্রকল্পের কথা বলে তা রাজ্য করতে দিচ্ছে না বলেও অভিযোগ তোলা হতে পারে। সেক্ষেত্রে কোচবিহার লোকসভার অধীন ছ’টি বিধানসভাতেই এবার জয়ী হয়েছে বিজেপি। তাই নিশীথ প্রামাণিককে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভায় নিয়ে এসে একদিকে যেমন রাজবংশী ভোটব্যাঙ্ককে নিজের হাতে রেখে দিলেন মোদী, তেমনই একুশের নির্বাচনে ভালো ফলের কারণেও তাঁকে পুরস্কৃতও করা হল।