কোচবিহার জেলা জুড়ে পালিত হল শ্রীরামের পুজো

168

কোচবিহার, ৫ আগস্টঃ করোনা মোকাবিলায় রাজ্য জুড়ে জারি রয়েছে সম্পূর্ণ লকডাউন। এই অবস্থায় বুধবারেই অযোধ্যায় হচ্ছে বহু প্রতীক্ষিত রাম মন্দিরের ভুমি পুজো। এই দিনটিতে স্মরণীয় করে রাখতে কোচবিহার জেলা দিনহাটা, মাথাভাঙ্গা, মেখলিগঞ্জ, হলদিবাড়ি, সিতাই, কোচবিহার ১ ও ২ নং ব্লক, তুফানগঞ্জ সহ বিভিন্ন এলাকা জুড়ে শ্রীরামের পুজো শুরু হয়েছে। লকডাউন উপেক্ষা করেই জেলার বিভিন্ন প্রান্তে মন্দিরে শুরু হয়েছে পুজো।

এদিন সকালে কোচবিহার ১ নং ব্লকের ধুলাবারি মন্দিরে বিজেপি কর্মীরা ধুমধাম করে যজ্ঞের মধ্য দিয়ে এই পূজায় অংশগ্রহণ করেন। এদিনের বিজেপির কর্মকর্তারা ওই পুজার আয়োজন করেন। এদিন সেখানে পুজার পরিচালনা করেন নাটাবাড়ি বিধানসভায় বিজেপির সংযোগ কমিটির সদস্য শুভাশিস চৌধুরী।

এদিন তিনি বলেন, ভগবান রামচন্দ্রের জন্মভূমি অযোধ্যা। কিন্তু তাঁর জন্মভূমিতে নেই। আজ দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর অযোধ্যায় প্রভু রামচন্দ্রের একটা মন্দির প্রতিষ্ঠিত হচ্ছে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে। অযোধ্যায় আজ রাম মন্দিরের ভূমি পুজো। হিন্দুদের কাছে বিশেষ দিন। প্রভু রামচন্দ্রের ভক্তরা আজ ঘুঘুমারির ধলুয়াবাড়ির শিব মন্দিরে রামের পুজা করা হয়।

এর পাশাপাশি কোচবিহার জেলা বিজেপির নেত্রী দীপা চক্রবর্তী প্রধানমন্ত্রীর কথামত তাঁর নিজের বাড়িতে ভগবান রাম চন্দ্রের পুজা করেন। এদিন তিনি বলেন, প্রায় ৫০০বছর দাবি পূরণ হল। আজ অযোধ্যায় রাম মন্দিরের ভিত্তিস্থাপন অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হচ্ছে। করোনা আবহে অনেকেই সেই মহান অনুষ্ঠানে দেশের সকল মানুষ উপস্থিত থাকতে পাববে না বলে প্রধানমন্ত্রী দেশবাসীর কাছে আহ্বান করেছিলেন নিজের বাড়িতেই পুজো করে এই দিনটি আনন্দ উপভোগ করতে। প্রধানমন্ত্রীর কথা মতোই বিজেপি নেত্রী দীপা চক্রবর্তী নিজের বাড়িতেই রাম পূজা করল পাশাপাশি শঙ্খ ধ্বনি ও সন্ধ্যায় প্রদীপ দিয়ে দীপাবলীর মতো সাজিয়ে তুলবে বলে জানান তিনি।

এদিকে দিনহাটা পৌরসভার ১১, ১২ ও ১৫ ওয়ার্ডে হিন্দু ধর্মের সাধারন মানুষরা রাস্তার মোড়ে ভগবান রামচন্দ্রের বিশেষ পূজা পাঠ করেন। ১১ নং ওয়ার্ডে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিজেপির যুব মোর্চার শহর মণ্ডল সভাপতি মুন্না সাউ।

এদিন তিনি বলেন,‘এটা বিজেপির বা কোনও রাজনৈতিক দলের অনুষ্ঠান নয়। এই অনুষ্ঠান গোটা দেশবাসীর। আজ অযোধ্যায় রাম মন্দিরের ভূমি পুজো। হিন্দুদের কাছে বিশেষ দিন। আজ জয় শ্রীরাম ধ্বনি দিয়ে পুজোর অর্ঘ্য সাজিয়ে ১১ নং ওয়ার্ডের একটি রাস্তার মোড়ে ভগবান রামের পুজো করা হয়।

অন্যদিকে তুফানগঞ্জে কোচবিহার জেলা বিজেপির সহ সভানেত্রী শিখা বসাক তাঁর নিজের বাসভবনে প্রধানমন্ত্রী কথামত ভগবান রামচন্দ্রে পুজা বাড়িতে। এদিন তিনি রামচন্দ্রের পুজা করেন এলাকার লোকজনকে লাড্ডু বিতরন

এছাড়াও মাথাভাঙ্গার হিন্দু নাগরিক মঞ্চের পক্ষ থেকে একটি শোভাযাত্রা বের হয়। শোভাযাত্রাটি মাথাভাঙা শহরের একাংশ এবং শহর সংলগ্ন এলাকাতে ঢাকঢোল রামের মূর্তি ইত্যাদি নিয়ে পরিক্রমা করে।

এদিন মাথাভাঙ্গা হিন্দু নাগরিক মঞ্চের পক্ষ থেকে অরিন্দম বর্মণ জানান, বহু প্রতীক্ষিত এবং জল্পনার অবসান আজকে ঘটতে চলেছে, অযোধ্যায় আজ রাম মন্দির নির্মাণের কাজ এর শুভ সূচনা হবে। আমরা হিন্দু নাগরিক মঞ্চের পক্ষ থেকে আনন্দিত।

তাছাড়া মেখলিগঞ্জ, হলদিবাড়ি, সিতাই, কোচবিহার ২ নং ব্লকের  বিভিন্ন এলাকায় মন্দির ও বাড়িতে পুজা করেন বলে জানা গিয়েছে।