পাশে নেই পরিবারও, করোনা আক্রান্ত ব্যক্তির সৎকার করল পুলিশ।

446

আলিপুরদুয়ার, ১ আগস্টঃ হু হু করে জেলায় বাড়ছে করোনা সংক্রমণের সংখ্যা। রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় আকারন্ত হয়েছেন বহু পুলিশ কর্মী। তাও নিজেদের জীবনের ঝুকি নিয়ে লড়াই করে যাচ্ছে পুলিশ। না এবারে করোনায় আক্রান্ত নয় কোন পুলিশকর্মী। এবারে নিজের জীবনের ঝুকি নিয়ে মানবিকাতার পরিচয় দিলেন শামুকতলা থানার পুলিশ। জানা গিয়েছে, ডুয়ার্সের আলিপুরদুয়ার ২ নম্বর ব্লকের শামুকতলায় এক করোনা আক্রান্ত ব্যক্তির মৃত্যু হলো। তাই নিয়ে চাঞ্চল্য ছড়ায় গোটা শামুকতলা থানা এলাকা জুড়ে ।

জানা গিয়েছে, মৃত ওই ব্যক্তি বনদপ্তরের প্রাক্তন কর্মী ছিলেন। তিনি শামুকতলা গ্রাম পঞ্চায়েতের শক্তিনগর এলাকার বাসিন্দা ছিলেন। বেশ কিছুদিন আগে করোনা উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হলে। গতকাল শ্বাসকষ্ট দেখা দিলে তাকে শামুকতলা হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। শেষে সেখানেই শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি|

সরকারি নিয়ম মেনে তাঁর দেহ পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া হলে তাঁরা নিতে অস্বীকার করেন।এলাকার গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান এর উদ্যোগে মৃতদেহ সৎকার করার জন্য ব্যবস্থা করা হলেও শামুকতলা লালপুল এলাকার শ্মশানে দেখা পাওয়া যায়নি পরিবারের বা এলাকার কারোরই।

এমনকি পরিবারের লোকেরা মৃতদেহের কোন খোঁজ পর্যন্ত নেননি। স্বাভাবিক ভাবেই পুরো মৃতদেহের দায়িত্ব নেন শামুকতলা থানার পুলিশ। শামুকতলা থানার পুলিশের নেতৃত্বে এলাকার তিনজনকে মৃতদেহ সৎকারের জন্য নিয়ে আসা হলেও শেষ পর্যন্ত শামুকতলা থানার ওসি বিরাজ মুখার্জী থানার বাকি পুলিশ কর্মীদের নিয়ে মৃতদেহ সৎকার করেন। শামুকতলা থানার ওসি বলেন পরিবারের লোকেরা মৃতদেহ নিতে আসেনি। এমনকি তারা দেখতেও আসেনি ।