এবার দক্ষিন দিনাজপুর জেলায় করোনার থাবায় প্রথম মৃত্যু হল এক মহিলা পুলিশ কর্মীর

62

নিজস্ব সংবাদদাতা, বালুরঘাটঃ করোনার থাবায় এবার দক্ষিন দিনাজপুর জেলায় প্রথম মৃত্যু হল এক মহিলা পুলিশ কর্মীর। মৃত ওই পুলিশ কর্মীর নাম পপি চৌধুরী (৫৪)। তিনি পশ্চিমবঙ্গ পুলিশের এসিস্টেন্ট সাব ইন্সপেক্টার পদে গঙ্গারামপুর মহকুমা আদালত বুনিয়াদপুর কোর্টে কর্মরত ছিলেন। জানা গিয়েছে, ওই এ.এস.আই পদমর্যাদার মহিলা পুলিশ কর্মী বুনিয়াদপুর আদালতে কর্মরত থাকলেও কয়েক মাইল  দুরত্বে  গঙ্গারামপুর থানা কোয়ার্টারে থাকতেন তিনি। এই ঘটনায় জেলার পুলিশ মহলে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

জেলা পুলিশ সুত্রে জানা গেছে,  গত মাসের ১৩ তারিখে তার লালারস সংগ্রহ করা হয়। ১৬ তারিখ সেই লালারসের রিপোর্ট পজিটিভ আসলে তাকে প্রথমে গঙ্গারামপুরের স্টেডিয়ামের সেফ হোমে রাখা হয়। কিন্তু পরবর্তিতে তার শারিরিক পরিস্থিতির  অবনতি হয়ে পড়ে। উন্নত চিকিৎসার  পরিষেবার  জন্য   কয়েকদিন আগে  ৫১ বছরের ওই এ এস আই পদমর্যাদার মহিলা পুলিশ  অফিসাকে  স্বাস্থ্য দফতরের উদ্যোগে   বালুরঘাট কোভিড হাসপাতালে  নিয়ে এসে ভর্তি করা হয়েছিল। সেখানেই তার  চিকিৎসা চলছিল। দুদিন আগে  কোভিড হাসপাতালে তার শারীরিক অবস্থার দ্রুত  অবনতি হলে তাকে চিকিৎসকের পরামর্শে   শিলিগুড়ি নিয়ে যাওয়া হয়।শিলিগুড়িতে  ডাক্তার চেং  হাসপাতালে তাকে ভর্তি করা হয়।

রবিবার জেলা পুলিশ সুপার দেবর্ষি দত্ত জানান, শিলিগুড়িতে  চিকিৎসাধীন থাকা  অবস্থায় গতকাল রাতে সেখানে তার মৃত্যু হয়েছে। ওই মহিলা পুলিশ কর্মীর একটি ছেলে রয়েছে বলে জেলা পুলিশ সুপার জানিয়েছেন। পুলিশ সুত্রে জানা যায়, চাকরির সূত্রে ছেলেকে নিয়ে গঙ্গারামপুরে সরকারি আবাসনে থাকতেন ওই মহিলা পুলিশ অফিসার।

অপরদিকে  জেলা স্বাস্থ্য দপ্তরের তরফে মৃতা মহিলা পুলিশ অফিসার পপি চৌধুরীর ছেলের লালারসের পরীক্ষা করা হলে তার রিপোর্টও পজিটিভ আসে। বর্তমানে চিকিৎসাধীন রয়েছেন মৃতা পুলিশ অফিসারের ছেলে। এদিকে এই খবর জেলা পুলিশ মহলে ছড়িয়ে পড়তেই পুলিশ মহল ও পুলিশের পরিবার মহলে শোকের  ছায়া।