বিজেপি সাংসদকে হেনস্থা ও কালো পতাকা দেখিয়ে গো-ব্যাক স্লোগান দেওয়ার অভিযোগ তৃনমূলের বিরুদ্ধে

500

বিশ্বজিৎ সরকার, কালিম্পং: ফের হেনস্তার শিকার দার্জিলিংয়ের বিজেপি সাংসদ। হেনস্তার ঘটনায় তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীদের কাঠগড়ায় তুললেন সাংসদ। অভিযোগ,পুলিশ ও তৃণমূল নেতারা তাঁর গাড়িতে হামলা করেছেন। এমনকি মারধর করা হয়েছে রাজুবিস্তার দেহরক্ষীদেরও। এদিন কালিম্পং-এ তাঁর গাড়ি ঢুকতেই ওঠে গো-ব্যাক স্লোগান। তৃনমূলের হামলায় আহত হয়েছেন রাজু বিস্তাও।

জানা গিয়েছে, মঙ্গলবার সকালে একটি অনুষ্ঠানে যোগ দিতে কালিম্পংয়ে যাচ্ছিলেন বিজেপি সাংসদ রাজু সিং বিস্তা। অভিযোগ, সেই সময় মন্দির খোলা এলাকায় প্রায় ৮০ থেকে ১০০ জন তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতী মদ্যপ অবস্থায় তাঁর গাড়ি ঘিরে ফেলে। কালো পতাকা দেখিয়ে তাঁকে গো ব্যাক স্লোগানও দিতে শুরু করে তারা। আচমকাই ধারালো অস্ত্র নিয়ে দুষ্কৃতীরা সাংসদ ও তাঁর সঙ্গীদের আক্রমণ করে বলেও অভিযোগ। আক্রমণের ঘটনায় আহত হন বেশ কয়েকজন বিজেপি ও জেজিএম কর্মীও। সাংসদকে বাঁচাতে গিয়ে গুরুতরভাবে জখম হয়েছেন তাঁর দেহরক্ষীও। এদিনের ঘটনায় রাজ্য পুলিশকে কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়েছেন বিজেপি নেতা। তাঁর অভিযোগ, গোটা ঘটনার দায় রাজ্য পুলিশের।

সাংসদ জানান, পুলিশের তরফে আশ্বাসও মিলেছিল। কিন্তু তা সত্ত্বেও এহেন ঘটনায় তিনি প্রশ্ন তুলেছেন পুলিশের ভূমিকা নিয়ে। পুলিশের পাশাপাশি ঘটনার পরই রাজ্য সরকারের প্রতিও একরাশ ক্ষোভ প্রকাশ করেন সাংসদ।

কারণ, সোমবার রাতেই পুলিশের উচ্চপদস্থ কর্তাদের তিনি মঙ্গলবারের সফরসূচির বিষয়ে জানিয়েছিলেন। অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে বাড়তি নিরাপত্তাও চেয়েছিলেন তিনি। কিন্তু পুলিশের তরফে সেই আশ্বাস মিললেও এদিনের ঘটনায় তিনি প্রশ্ন তুলেছেন পুলিশের ভূমিকা নিয়ে। পাশাপাশি রাজ্য সরকারের প্রতিও একরাশ ক্ষোভ উগড়ে দেন তিনি। এই ঘটনা প্রকাশ্যে আসতেই শিলিগুড়িতে বিক্ষোভের ডাক দেয় জেলা বিজেপি নেতৃত্ব।