মাথাভাঙ্গায় বিজেপি কর্মীর বাড়িতে ভাঙচুর ও বোমাবাজি করার অভিযোগ তৃনমুল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে

180

কাজল রায়, মাথাভাঙ্গাঃ করোনা আবহের মাঝে বিজেপি কর্মীর বাড়িতে ভাঙচুর ও বোমাবাজি করার অভিযোগ উঠল তৃনমুল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে মাথাভাঙা শহরে লাগোয়া ফকিরিকুটি গ্রামে। ওই ঘটনায় পিন্টু সূত্রধর নামে একজন জখম হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে বলে অভিযোগ বিজেপির স্থানীয় নেতৃত্বের। যদিও অই অভিযোগ অস্বীকার করেছে তৃনমূল।

স্থানীয় বিজেপি নেতা সুরেন বর্মন অভিযোগ, অযোধ্যায় ভূমিপূজা উপলক্ষে আমরা শামিল হয়েছিলাম একটি জায়গায়। আর সেটা তৃণমূল কংগ্রেসের সহ্য হচ্ছিল না। তাই তারা গতরাতে তৃণমূলের হার্মাদ বাহিনীরা এলাকার বেশ কয়েকটি গাড়ি ভাঙচুর করে। যাদের বাড়ি ভাঙচুর করা হয়েছে তারা কোন রাজনৈতিক দলের সাথে যুক্ত না। ওই এলাকার শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বিঘ্নিত করার জন্যই তৃণমূল এই কাজ করেছে। ওই হামলায় পিন্টু সূত্রধর নামে এক ব্যক্তি গুরুতর আহত হয়। সে বর্তমানে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

সুরেন বাবু আরও অভিযোগ করে বলেন, শুধু বাড়ি ভাঙচুর নয়, দুষ্কৃতকারীরা এলাকায় বোমাবাজিও করেছে। অবিলম্বে যারা প্রকৃত দোষী তাদের গ্রেপ্তার করে এলাকার শান্তি রক্ষা করুক পুলিশ।  

যদিও তৃণমূলের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ ভিত্তিহীন বলে দাবি করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। তৃণমূল কংগ্রেসের নেতা তথা দলের নবনিযুক্ত মুখপাত্র নরেন্দ্র চন্দ্র দত্ত বলেন, ফকিরিকুটি এলাকায় গত রাতে যে হামলা হয়েছে তাতে তৃণমূল কংগ্রেসের সঙ্গে কোনোভাবেই যুক্ত নন। আর বিজেপির পায়ের তলার মাটি সরে যাওয়াতে কারও পারিবারিক দ্বন্দ্বতেও সাম্প্রদায়িকতা খুঁজে পান। বিজেপির এখন দুটো দল একটা দিলীপ পন্থী আর একটা মুকুল পন্থী। তাই তাদের দলের নেতা কর্মীরা এলাকায় অশান্তি সৃষ্টি করবার জন্য নিজেরাই নিজেদের বাড়িতে হামলা চালিয়ে রাজনৈতিক ভাবে ফায়দা লোটার চেষ্টা করছে। ওই ঘটনায় আমাদের কোন কর্মী যুক্ত ছিল না এটা দায়িত্ব নিয়ে বলতে পারি। কারন তৃনমূল কংগ্রেস এই ধরনের নোংরা রাজনীতি করে না।