তৃণমূল নেতাকে মারধর, বন্দুক নিয়ে ভয় দেখানোর অভিযোগ, বিজেপির বিরুদ্ধে

117

ওয়েব ডেস্ক, ২৪ জুলাইঃ বর্ধমানে তৃণমূল নেতাকে মারধরের অভিযোগ। শনিবার সকালে প্রকাশ্যে বন্দুক নিয়ে তাঁকে ভয় দেখানোরও অভিযোগ উঠেছে। এই ঘটনায় কাঠগড়ায় এক বিজেপি নেতা। যদিও অভিযোগ অস্বীকার করে পালটা তৃণমূলের বিরুদ্ধেই মারধর, ভয় দেখানোর অভিযোগ করেছেন ওই বিজেপি নেতার স্ত্রী। এদিকে অভিযুক্তর শাস্তির দাবিতে এদিন থানাও ঘেরাও করেন তৃণমূল নেতা-কর্মীরা। সবমিলিয়ে সকাল থেকেই উত্তপ্ত বর্ধমানের ২৪ নম্বর ওয়ার্ডের ভেড়িখানা মোড়া এলাকা।

বিশ্বজিৎ দাস নামে এই তৃণমূল নেতা জানিয়েছেন, এদিন সকালে বাইকে চেপে তিনি কাজে যাচ্ছিলেন। অভিযোগ, সেই সময় পিছন থেকে বিজেপি নেতা কপিল দাস ও তার দুই সঙ্গী বাইকে ধাক্কা দেয়। পরে তাঁকে ঠেলে ফেলে দেয়। বাইক থেকে পড়ে যাওয়ার পরই তাঁকে বেধড়ক মারধর করা হয় বলে অভিযোগ। এমনকী, মাথায় বন্দুক ঠেকিয়ে বিশ্বজিৎ দাসকে ভয় দেখানো হয় বলে দাবি। তাঁর চিৎকার শুনে স্থানীয় তৃণমূল কর্মীরা ছুটে এলে অভিযুক্ত বিজেপি নেতারা ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়। এর পর অভিযুক্ত কপিল দাসের বাড়িতে গিয়ে তাঁকে বেরতে বলেন। কিন্তু বিজেপি নেতা প্রকাশ্যে না এলে তৃণমূল কর্মীরা থানা ঘেরাও করে।

পালটা কপিল দাস এর স্ত্রী রুবি দাসের অভিযোগ, বিজেপি কর্মী হওয়ায় এদিন কপিল দাসের উপর হামলা হয়েছে। এদিন বাজারে যাওয়ার সময় তাকে মারধর করে তৃণমূল কর্মীরা। এমনকী, বাড়িতে এসেও তৃণমূল কর্মীরা হামলা চালিয়েছে বলে অভিযোগ। অশ্লীল কটূক্তি করা হয় বলেও দাবি রুবি দাসের। তবে এ নিয়ে পুলিশে অভিযোগ করেননি তাঁরা। উলটো দিকে তৃণমূলের পক্ষ থেকে দোষীদের গ্রেপ্তারের দাবিতে বর্ধমান থানা বেশ কিছুক্ষণ ঘেরাও করে বিক্ষোভ দেখানো হয়। পুলিশ উপযুক্ত ব্যবস্থার আশ্বাস দেন।