দিনহাটায় বিজেপি ঘনিষ্ঠ গ্রেটার নেতা অনন্ত মহারাজের সাথে প্রকাশ্যে সাক্ষাৎ তৃণমূল বিধায়কের, জেলা রাজনীতিতে চাঞ্চল্য 

538

দিনহাটা, ১২ জুলাইঃ গ্রেটার কোচবিহার নেতা অনন্ত মহারাজ বিজেপি ঘনিষ্ঠতা ছেড়ে তৃণমূল নেতৃত্বের সাথে ঘনিষ্ঠতা বাড়াচ্ছেন বলে বেশ কিছুদিন ধরেই রাজনৈতিক মহলে চর্চা শুরু হয়েছিল। গোপনে বেশ কয়েকজন তৃণমূল নেতার সাথে তাঁর সাক্ষাৎ হওয়ার প্রসঙ্গ সংবাদ মাধ্যমে উঠেও এসেছিল। কিন্তু এবার আর গোপনে নয়। প্রকাশ্যেই সিতাইয়ের তৃণমূল কংগ্রেস বিধায়ক জগদীশ বসুনিয়ার সাথে আলোচনা করতে দেখা গেল গ্রেটার কোচবিহার পিপলস অ্যাসোসিয়েশনের নেতা অনন্ত রায় মহারাজকে। এনিয়ে কোচবিহারের রাজনৈতিক মহলে ব্যাপক চর্চা শুরু হয়েছে।

আজ দিনহাটা গোসানিমারি এলাকায় কামতেশ্বরী মন্দিরে সাক্ষাৎ হয় ওই দুই নেতার। সেখানে অনন্ত মহারাজ কামতেশ্বরী মন্দিরে পূজা দিতে আসা ভক্ত ও দর্শনার্থীদের জন্য শেট নির্মাণ করার জন্য বিধায়কের কাছে আবেদন জানান। বিধায়ক তাঁকে আশ্বাস দিয়ে বলেন, পঞ্চায়েত সমিতি থেকে আর্থিক বরাদ্দ করে ওই মন্দিরে যাত্রী শেট নির্মাণ করার উদ্যোগ গ্রহণ করবেন তিনি। এছাড়া রাজনৈতিক কোন বিষয় নিয়ে তাদের মধ্যে কথা হয়েছে কিনা, তা এখনও জানা যায়নি। বিধায়ক জগদীশ বসুনিয়া বলেন, “এই সাক্ষাৎ সৌজন্য মূলক। এর বাইরে কিছু নয়।”

২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচন ও ২০২১ সালের বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপির সাথেই ছিলেন অনন্ত মহারাজ। কেন্দ্রের প্রথম সারির বিজেপি নেতৃত্বের সাথে একাধিক মঞ্চে অনন্ত মহারাজকে দেখা গিয়েছে। নির্বাচনী প্রচারে বহু জনসভায় হলুদ পতাকা জানান দিয়েছে বিজেপির থেকেও অনন্ত মহারাজ অনুগামী ভিড় ছাপিয়ে গিয়েছে। বিধানসভা নির্বাচনে কোচবিহারে প্রচার আসার আগে অসমে গিয়ে অনন্ত মহারাজের বাড়িতে খাওয়াদাওয়া করে এসেছিলেন খোদ বিজেপির প্রাক্তন সর্ব ভারতীয় সভাপতি তথা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অমিত শাহ।

কিন্তু নির্বাচন চলাকালীনই বিজেপির সাথে অনন্ত মহারাজের দূরত্ব বাড়তে শুরু করে বলে শোনা যাচ্ছিল। দীর্ঘ সময় ধরে কেন্দ্রের ক্ষমতায় থাকা বিজেপিকে সমর্থন দিয়ে গেলেও ভারত ভুক্তি চুক্তি মেনে কোচবিহারকে পৃথক রাজ্যের মর্যাদা না দেওয়ার জন্য অনন্ত মহারাজের ওই ক্ষোভ বলে ঘনিষ্ঠ মহল সূত্রে জানা গিয়েছিল। কিন্তু অসমে থেকে বিজেপি বিরোধিতা করতে পারছিলেন না বলেই কার্যত মুখে কুলুপ এঁটে বসেছিলেন তিনি। ভোটের সময় কোচবিহারে এসেই আর অসমে ফিরে যাননি অনন্ত মহারাজ। তিনি তাঁর কোচবিহার ২ নম্বর ব্লকের খাপাইডাঙ্গা এলাকার রাজবাড়িতেই থাকতে শুরু করেন। সেখানে থেকেই তৃণমূল নেতৃত্বের সাথে তাঁর যোগাযোগ স্থাপন হয়। ভোটের পরে খোদ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে প্রাক্তন উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ সেই রাজবাড়িতে গিয়ে দেখা করেন বলেও জানা যায়। আর ওই ঘটনার পর এদিন প্রথম দিনহাটার কামতেশ্বরী মন্দিরে অনন্ত মহারাজের সাথে সিতাইয়ের তৃণমূল বিধায়ক জগদীশ বসুনিয়ার সাথে প্রকাশ্যেই সাক্ষাৎ করতে দেখা যায়।