সিংঘু সীমান্তে যুবক হত্যার ঘটনায় আত্মসমর্পণ আরও দু’জনের

45

ওয়েব ডেস্ক, ১৭ অক্টোবরঃ সিংঘু সীমান্তে দলিত যুবককে হত্যার ঘটনায় আগেই আত্মসমর্পণ করেছিল শিখদের নিহং গোষ্ঠীর এক সদস্য। এবার পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণ করলেন আরও দু’জন। তারাও নিহং গোষ্ঠীর একটি সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত বলেই খবর। আত্মসমর্পণ করা দুই যুবকের নাম ভগবন্ত সিং ও গোবিন্দ সিং।

শুক্রবার ভোরে আন্দোলনরত কৃষকের মঞ্চের পাশ থেকে উদ্ধার হয় ব্যক্তির হাত কাটা ঝুলন্ত দেহ। খুনের পর হাত কাটা অবস্থায় দেহ পুলিশের ব্যারিকেডে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়। জানা যায় মৃত যুবকের নাম লখবীর। তাঁর বাড়ি পাঞ্জাবের তরণ তারণ জেলার চিমা কালান গ্রামে। শিখদের নিহং গোষ্ঠীর নির্ভইর খালসা উডনা দলের নেতা বলবিন্দর সিং সংগঠনের তরফে এই খুনের দায় স্বীকার করে। এরপরই পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণ করেন সর্বজিত্ সিং নামক এক শিখ যুবক। তিনি দাবি করেন, লখবীর পবিত্র ধর্মগ্রন্থের অবমাননা করেছিলেন। তাই তাঁকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

সর্বজিত্-এর পর খুনের ঘটনায় আরও দুই শিখ যুবক পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণ করেন। তাদের একটি ভিডিও প্রকাশ্যে এসেছে। সেখানে দেখা যাচ্ছে গলায় মালা পরে থানায় যাচ্ছেন দুই যুবক। সংগঠনের বাকি সদস্যরা হাততালি দিয়ে তাঁদের সম্মান জানাচ্ছেন।