ঘর জামাইয়ের অস্বাভাবিক মৃত্যু,জিজ্ঞাসাবাদের জন্য স্ত্রীকে আটক করল পুলিশ

138

শ‍্যাম বিশ্বাস, উওর ২৪ পরগনাঃ ঘর জামাইয়ের করুন পরিনিতি, শেষ পর্যন্ত রহস্য  মৃত্যু। আর এই নিয়েই খুনের অভিযোগ শ্বশুরবাড়ির লোকদের বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর ২৪ পরগণা জেলার দেগঙ্গার শ্বেতপুর গ্ৰামে। বেশ কয়েক বছর আগেই শ্বেতপুর গ্রামের চন্দনা সেন সাথে বিয়ে হয়, প্রতিবেশী গ্রামের যুবক সমীর সেনের সাথে। কিন্তু বিয়ের পর থেকে চন্দনার বাড়িতে থাকত সমীর।

সমীরের পরিবারের লোকেদের অভিযোগ, সমীরের স্ত্রী, শালিকা, শ্বশুর ও শ্বাশুড়ি তাদের ছেলেকে ওপর নিয়মিত অত্যাচার করত। তাঁরাই গলায় ফাঁস দিয়ে সমীরকে মেরে ফেলেছে। তাদের আরও অভিযোগ স্ত্রী চন্দনার সাথে অন্য এক পুরুষের অবৈধ সম্পর্ক আছে।

এইজন্য তাদের সংসারে  অশান্তি চলতো এবং সমীর যে তার বাবা, মায়ের সাথে যোগাযোগ রাখতো সেটা চাইতো না, স্ত্রী চন্দনা এবং তার বাপের বাড়ির লোকজন। সমীরকে অনেক দিন থেকে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে রেখেছিল স্ত্রী চন্দনা বলে গুরুতর অভিযোগ ওই পরিবারের। মৃতদেহে একাধিক আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

 যদিও সমীরের  শ্বশুরবাড়ির  লোকজন মেরে ফেলার অভিযোগ অস্বীকার করে পাল্টা সমীরের সাথে অন্য এক মহিলার অবৈধ সম্পর্কের জেরে মৃত্যু বলে দাবি করা হয়েছে। এই ঘটনায় দেগঙ্গার শ্বেতপুর গ্ৰামে চাঞ্চল্য দেখা দিয়েছে। দেগঙ্গা থানায় চারজনের নামে লিখিত অভিযোগ দায়ের করে সমীরের পরিবারের লোকজন। ঘটনার তদন্তে নেমেছে দেগঙ্গা থানার পুলিশ। ইতিমধ্যে পুলিশ আটক করেছে স্ত্রী চন্দনাকে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে বলে জানা গেছে।