ছেলেধরা সন্দেহে এক মহিলাকে আটকে পুলিশের হাতে তুলে দিলো গ্রামবাসীরা

28

ছোটন দে, জলপাইগুড়িঃ ছেলেধরা সন্দেহে এক মহিলাকে আটকে পুলিশের হাতে তুলে দিলো গ্রামবাসীরা। উদ্ধার হওয়া মহিলার নাম কল্পনা দাস। জলপাইগুড়ি মোহিতনগরে ডাঙ্গাপাড়া এলাকার বাসিন্দা। পুলিশ ও প্রশাসনের গণপিটুনির বিরুদ্ধে প্রচার সাধারন মানুষের মধ্যে ভালো প্রভাব পরেছে খুশি পুলিশ কর্তারা। উদ্ধার হওয়া মহিলাকে আজ পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া হবে বলে যানিয়েছেন পুলিশ।

জলপাইগুড়ি বাহাদুর গ্রাম পঞ্চায়েতের মুন্সিপাড়া এলাকার বাসিন্দারা আজ সকালে দেখতে পান একজন মহিলা ঘোরাঘুরি করছে। মহিলাকে আটকে গ্রামবাসীরা জিজ্ঞেসাবাদ করাতে মহিলা অসংলগ্ন কথা বলছে। ইতি মধ্যেই গ্রামের প্রচুর লোক মহিলাকে আটকে ফেলে ছেলে ধরা সন্দেহে।  গ্রামবাসীরা মহিলাকে মার কোনো প্রকার মারধোর না করে খবর দেয় জলপাইগুড়ি কোতয়ালী থানাতে। পাশাপাশি মহিলাকে চা বিস্কুট খাওয়ান গ্রামবাসীরা। কোতোয়ালী থানার পুলিশ ঘটনার স্থলে গিয়ে মহিলাকে উদ্ধার করে থানাতে নিয়ে আসে।

স্থানীয় মহিলারা জানান, বাহাদুর পঞ্চায়েতের মুন্সিপাড়া এলাকায় কারো বাড়িতে গিয়েছিল সেই বাড়ি খুজে না পেয়ে গ্রামের রাস্তায় ঘোরাঘুরি করছিল এটা দেখেই গ্রামবাসীদের সন্দেহ হয় গ্রামে ছেলেধরা এসেছে। কিন্তু গ্রামবাসীরা মহিলাকে আটকে মারধোর না দিয়ে পুলিশের হাতে তুলে দেওয়াতে পুলিশ প্রশাসন খুশি। জলপাইগুড়ি জেলা পুলিশ বিভিন্ন গ্রামে ছেলে ধরা সন্দেহে গণপিটুনি বিরুদ্ধে লাগাতার প্রচার করছিল সেই প্রচারেই গ্রামের মানুষ সচেতন হয়েছে বলে পুলিশের অনুমার। উদ্ধার হওয়া মহিলার বাড়ির লোকেদের খবর দেওয়া হলে মহিলার বাড়ির লোকেরা কোতয়ালী থানাতে এসে কল্পনা দাসকে নিয়ে যায়।