সরকারি চাকরি চাই না, আমরা চাই বাচ্চা নিতে : সাংসদ বদরুদ্দিন

2956

ওয়েব ডেস্ক, ২৮ অক্টোবরঃ কিছুদিন আগে জন্মহার ও জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণে নয়া পদক্ষেপ নিয়েছে অসম সরকার৷দু-য়ের বেশি সন্তান থাকলে  মিলবে না সরকারি চাকরি ।২০২১-এর ১ জানুয়ারি থেকে  কার্যকর হতে চলেছে এই সিদ্ধান্ত।তবে শনিবার এ প্রসঙ্গে বিস্ফোরক মন্তব্য করলেন অসমের মুসলিম সাংসদ বদরুদ্দিন আজমল।

অল ইন্ডিয়া ইউনাইটেড ডেমোক্র্যাটিক পার্টির নেতা বদরুদ্দিন আজমল বলেন, আমাদের দরকার নেই সরকারি চাকরির। কেবলমাত্র চাকরির জন্য বাচ্চার জন্ম দেওয়া বন্ধ করার পথে আমরা হাঁটব না। তিনি বলেন, সরকারি চাকরি চাই না, আমরা চাই বাচ্চা নিতে। তার অভিযোগ, মুসলিমদের চাকরি পাওয়া থেকে বিরত রাখতে রাজ্য সরকার এই আইন নিয়ে এসেছে।

মঙ্গলবার অসমের শিল্পমন্ত্রী মোহন পটওয়ারি জানান, আমাদের ক্যাবিনেট সিদ্ধান্ত নিয়েছে, ২০২১ সালের ১ জানুয়ারি থেকে দুই সন্তান নীতি না মানলে সরকারি চাকরি মিলবে না। এ প্রসঙ্গে বদরুদ্দিন আজমল বলেন, মুসলিমরা বাচ্চা নেওয়া বন্ধ করবে না। তার কথায়, আমাদের ধর্ম এবং আমি ব্যক্তিগতভাবে বিশ্বাস করি যে যারা বিশ্বে আসতে চান তারা আসবেন এবং কেউই এটি আটকাতে পারবে না।

বদরুদ্দিন আজমলের দাবি, বিজেপি-নেতৃত্বাধীন রাজ্য সরকার আইন করে কিছুতেই দু’সন্তান নীতি কার্যকর করতে পারবে না। তার মতে, এই আইন পরিবেশের স্বাভাবিক নিয়মের বিরুদ্ধ। তিনি বলেন, এই আইনে মুসলিমদের সন্তানের জন্ম দেওয়া বন্ধ করতে পারবে না। মুসলমানরা সন্তান জন্মদান করতে চাইবে তাই করবে।

এদিন অসম রাজ্য সরকার এবং সংঘ পরিবারকে আক্রমণ করেছেন সাংসদ বদরুদ্দিন। তিনি বলেছেন, “শুনলাম যে মুখ্যমন্ত্রী সর্বানন্দ সনোয়াল তাঁর পিতামাতার অষ্টম সন্তান। যদি তিনি না জন্মাতেন তাহলে মুখ্যমন্ত্রী হতেন কীভাবে?” সেই সঙ্গে তিনি আরও বলেন যে সংঘ প্রধান মোহন ভগবত বলছেন দশটা করে সন্তানের জন্ম দিতে। আর বিজেপি সরকার ২ টির বেশি সন্তান নিতে বারণ করছে। “বিজেপি কি তাহলে সংঘের কথা শুনছে না?” প্রশ্ন তুলেছেন সাংসদ বদরুদ্দিন আজমল।