“কালো মুখ নিয়ে ওঁরা কী করে যাবেন ?” মুখ্যসচিব-ডিজিকে বিঁধলেন দিলীপ ঘোষ

79

ওয়েব ডেস্ক, ১২ ডিসেম্বরঃ বৃহস্পতিবার ডায়মন্ড হারবারে দলীয় কর্মসূচিতে যাওয়ার পথে দক্ষিণ ২৪ পরগনার শিরাকোলে বিজেপি সভাপতি জে পি নড্ডার কনভয়ে হামলা চালায় দুষ্কৃতীরা। তারপরে স্বরাষ্টমন্ত্রক তলব করলেও মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় ও রাজ্য পুলিশের ডিজি বীরেন্দ্রর যাওয়ার মতো মুখ নেই৷ এই ভাষাতেই প্রশাসনের দুই শীর্ষ কর্তাকে আক্রমণ করলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। শুক্রবার পশ্চিম মেদিনীপুরের দাঁতনে সাংবাদিকদের দিলীপ বলেন, “কালো মুখ নিয়ে ওঁরা কী করে যাবেন?”

বৃহস্পতিবার বিজেপি সভাপতি জে পি নড্ডার কনভয়ে হামলা চালায় দুষ্কৃতীরা। ওই হামলার ঘটনা এবং পশ্চিমবঙ্গের সামগ্রিক আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি বিশদে জানতে মুখ্যসচিব ও রাজ্য পুলিশের ডিজিকে আগামী ১৪ ডিসেম্বর দিল্লিতে বৈঠকের জন্য ডেকে পাঠানো হয়েছিল।

কিন্তু শুক্রবার নবান্নের তরফে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রসচিব অজয় ভাল্লাকে চিঠি পাঠিয়ে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে যে আলাপন ও বীরেন্দ্র ওই তলবে দিল্লি যা‌চ্ছেন না। চিঠিতে রাজ্যের মুখ্যসচিব জানিয়েছেন,ওই ঘটনায় ডায়মন্ড হারবার পুলিশ জেলার দুই থানায় তিনটি পৃথক পৃথক মামলা দায়ের করা হয়েছে। এরই মধ্যে সাত জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

তিনি আরও লিখেছেন, গোটা বিষয়টি রাজ্য সরকার গুরুত্ব দিয়ে দেখছে। বুলেটপ্রুফ গাড়ি এবং পাইলট কার দেওয়া হয়েছিল। কনভয় এবং সভাস্থলের সুরক্ষায় পর্যাপ্ত পরিমাণে পুলিশ কর্মী মোতায়েন করা হয়েছিল। ছিলেন ৪ এসএসপি, ৮ ডিএসপি এবং ১৪জন ইন্সপেক্টর। ছিলেন ৭০ জন এসআই ও এএসআই ৪০ জন র‍্যাফ। ২৫৯ জন কনস্টেবল, ৩৫০ জনের সাহায্যকারী বাহিনী। কেন্দ্রীয় নিরাপত্তার বাইরেও এই ব্যবস্থা করেছিল রাজ্য।

ঘটনার তদন্ত শেষ করে খুব শীঘ্রই সর্বশেষ রিপোর্ট দেওয়া হবে বলে মুখ্যসচিব জানিয়েছেন। রাজ্য সরকার যেহেতু এরই মধ্যে ওই ঘটনা নিয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ করেছে তাই সোমবার সশরীরে দিল্লি গিয়ে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রসচিবের সঙ্গে তাঁর ও রাজ্য পুলিশের ডিজির বৈঠক করা থেকে মুখ্যসচিব অব্যাহতি চেয়েছেন।

এ নিয়েই আক্রমণ শানান দিলীপ ঘোষ। তিনি বলেন, সর্বভারতীয় সভাপতি জে পি নাড্ডাকে সুরক্ষা দিতে পারেনি। বিজেপি নেতাদের গাড়ি তো বটেই ভাঙচুরের হাত থেকে সংবাদমাধ্যম ও পুলিশের গাড়িও বাদ যায়নি। সেদিনই স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক চিঠি পাঠিয়েছিল পুলিশ প্রধানের কাছে, তার পরেও হামলা। তাই লজ্জায় যেতে পারছেন না।”