পুজো এলেই বৃদ্ধাশ্রমে নেমে আসে পুরাতন স্মৃতি, নিজেদের আনন্দেই এখনো ডুবে থাকেন ওরা

15

নরেশ ভকত, বাঁকুড়াঃ যখন আকাশে পেঁজা তুলোর আবেশ। কাশ ফুলের ঢেউ। তখন থেকেই এদের জীবনে মনখারাপের ভীড়। পুজোটা যাদের কাছে অন্য রকম। একটা সময় ছিল তখন সংসারে আনন্দের বন্যা আসতে দুর্গাপুজোতে। ছেলে বউ ননদ সবার ভীড় বইত সংসারে। এখন পুজো মানে মনখারাপ। পুজো মানেই পুরাতন স্মৃতিতে ডুবে থাকা। হ্যাঁ, স্বামী রাসবিহারী দাস কাঠিয়া বাবা বৃদ্ধালয়ের কথা বলছি। এখানে এখন বিভিন্ন প্রান্তের বৃদ্ধ বৃদ্ধার আবাস। সকলে মিলে কাটে বেস ভালোই। তবে এই পুজোর কটা দিন থাকে একটু মনখারাপের।

তবে এক আবাসিক অমিতা দাস জানান, মন খারাপ তো আছেই। তবে এখান থেকে সবাই মিলে পুজোতে বেড়াতে যাওয়া হয়। সেখানে একটা আলাদা আনন্দ থাকে। তবে আগের সেই স্মৃতি আজও মন খারাপ ডেকে আনে।

প্রতিষ্ঠানের সম্পাদক বলাই গরাই জানান, অনেক দিনের ইচ্ছে ছিল বৃদ্ধ বৃদ্ধার জন্য কিছু করতে। একবার এক ঘটনা আমাকে অনুপ্রাণিত করে। তারপরে এই ভড়াতে প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠিত করা হয়।

বরদা পাত্র নামে এক বৃদ্ধ জানান, এখানে তারা বেশ ভালোই আছে  এখানকার দিনগুলো সবাই মিলে হেসেখেলে কেটে যাচ্ছে। জীবনের যে কটা দিন পাওয়া যাবে এখানে যেমন সবাই মিলে হেসে খেলে কেটে যায়।