স্বনির্ভর গোষ্ঠীর তৈরি করা কাতল মাছের আচার বিক্রি করলেন সস্ত্রীক মাথাভাঙ্গা মহকুমা শাসক

275

কাজল রায়, মাথাভাঙ্গাঃ স্বনির্ভর গোষ্ঠীর মহিলারা কঠোর পরিশ্রম করে কাতল মাছের আচার তৈরি করেছে মাথাভাঙায়। আর সেই তৈরি আচার রাস্তার মোড়ে দাঁড়িয়ে আচারের বোতল পসরা সাজিয়ে বিক্রি করলেন মাথাভাঙার মহকুমা শাসক জিতিন যাদব(আইএএস) ও তার স্ত্রী।

এদিন মাথাভাঙা শহরের চৌপতি এলাকায় ফুটপাতে দাঁড়িয়ে পথচলতি মানুষকে ডেকে ডেকে ওই আচার বিক্রি করেন সস্ত্রীক মহকুমা শাসক।  জানা গেছে, প্রতিটি আচারের বোতলের মুল্য একশো কুড়ি টাকা। যদিও ওই আচারের বোতল মুহূর্তের মধ্যে শেষ হয়ে যায় বলে জানা গিয়েছে। মহকুমা শাসক দাঁড়িয়ে আচার বিক্রি করছে । তা দেখে প্রচুর মানুষ ও ক্রেতারা সেখানে ভিড় জমিয়েছে।

এদিন আচার ক্রেতা, অনুপ পাল, শাহ আলী ইমাম, অভি সাহা প্রমুখরা জানান,  মাথাভাঙা শহরের দুর্গাবাড়ি এসএইচজি স্বনির্ভর গোষ্ঠীর তৈরি করা কাতল মাছের আচারের কথা শুনেছি। কিন্তু বাজারে কেনার সুযোগ পাইনি। তাই মহকুমা শাসক বিক্রি করছেন দেখে একশো কুড়ি টাকা দিয়ে আচার কিনে নিলাম। পরিবারের সবাই মিলে এই আচারের স্বাদ গ্রহণ করব।

এদিন এবিষয়ে দুর্গাবাড়ি এসএইচজি স্বনির্ভর গোষ্ঠীর পক্ষে সুচিত্রা সেন সাহা জানান, মহকুমা শাসকের অনুপ্রেরণায় এবং তাহার সহযোগিতায় আমরা এই আচার তৈরি করতে শুরু করেছি। বিক্রি করতেও মহকুমাশাসক নিজে উপস্থিত থেকে সাহায্য করছেন। এর থেকে আর বেশি পাওনা কি আছে। একজন আইএএস অফিসার হিসেবে আমাদের সঙ্গে সস্ত্রীক সাহায্য করবেন আগে কখনো ভাবতেই পারেনি। এই আচার বিক্রি করে আমরা নিজেরা স্বনির্ভর হওয়ার স্বপ্নকে বাস্তবায়িত করতে পারছি। লাভের মুখ দেখতে পাচ্ছি। একজন ব্যবসায়ীর ভূমিকায় আইএএস অফিসার মাথাভাঙ্গা মহকুমা শাসককে দেখে মাথাভাঙার পথচলতি মানুষ ও সাধারন নাগরিক বিভিন্ন মহিলা স্বনির্ভর গোষ্ঠীর সদস্যরা অনুপ্রাণিত হয়েছেন।

মাথাভাঙ্গা মহকুমা শাসক জিতিন যাদবের নানা বিধ অভিনব কর্মসূচিকে সাধুবাদ জানিয়েছেন মাথাভাঙার নাগরিক মঞ্চ।