‘ইয়াস’ আপডেট, উত্তর ২৪ পরগনা

40

শ‍্যাম বিশ্বাস, উওর ২৪ পরগনাঃ ধেয়ে এসেছে ঘুর্নিঝড় ‘ইয়াস’। শুরু তার তান্ডব লিলা। আজ সাত সকালে তা আছড়ে পড়ে সমুদ্র উপকুলবর্তি এলাকায়। ইয়াস সাইক্লোনে বিপর্যস্ত উত্তর ২৪ পরগনা জেলা। এর আগে আয়লা, আম্ফান, বুলবুলে সুন্দরবনের এই বিস্তীর্ণ এলাকার জনজীবন স্তব্ধ হয়ে গিয়েছিল। গতবছর এই সময়েই আছড়ে পরেছিল আম্ফান। সেই আম্ফানের কাচা ঘা শুকতে না শুকতেই এই এলাকায় আবার ঘা বসালো ইয়াস। একনজরে দেখে নেব সকাল থেকে এপ্রজন্ত ইয়াস উত্তর ২৪ পরগনাকে কতটা গ্রাস করল।

১) সকাল সাতটায়, উত্তর ২৪ পরগনা সুন্দরবন লাগোয়া ব্লকে হিঙ্গলগঞ্জ সন্দেশখালি সহ ছটি বিধানসভায় বুধবার সকাল থেকে কালিন্দী রায়মঙ্গল সরদারপাড়া ইছামতি নদী দুর্বল বোধ করছে স্থানীয় পঞ্চায়েত ও প্রশাসন।

২) সকাল আটটায়, উত্তর ২৪ পরগনার বসিরহাট মহাকুমার সুন্দরবনের হিঙ্গলগঞ্জ ব্লকের গৌড়েশ্বর, রায়মঙ্গল, বিদ্যাধরী ও ইছামতি ডাসা নদীর পারে গ্রামবাসীরা প্রস্তুত ইয়াস মোকাবিলায়।

৩) সকাল নয়টায়, বসিরহাট মহকুমা বসিরহাট ইছামতি নদীর তীরে বাধ রক্ষা করতে নেমে পড়লেন গ্রামের মহিলারা।

৪) সকাল সারে নয়টায়, উত্তর ২৪ পরগনা বসিরহাট মহকুমা সুন্দরবন লাগোয়া হিঙ্গলগঞ্জ ও সন্দেশখালি ছয়টি ব্লকের ইয়াস মোকাবিলার জন্য এক কলম সেনা নামানো হয়েছে।

৫) সকাল দশটা নাগাদ, বসিরহাট মহাকুমার সুন্দরবনের সন্দেশখালি, ছোট কলাগাছিনদী, হিঙ্গলগঞ্জ এর ডাসানদী ও বসিরহাটের ইছামতি নদীর জলোচ্ছ্বাস বেড়ে যাওয়ায় একাধিক জায়গায় নদী বাঁধ ভেঙে গ্রামে হু হু করে জল ডুকতে শুরু করেছে।

৬) সকাল সারে দশটা নাগাদ, সন্দেশখালি ১ নম্বর ব্লকের সেহারা অঞ্চলের ভোলা খালি ৩০০ মিটারের মত নদীবাঁধ ধসে গ্রামে জল ঢুকছে। জলমগ্ন কালিনগর, সেহারার মতো একাধিক এলাকা, গ্রামের লোক বাড়ি ঘর ছেড়ে নিরাপদ আশ্রয় বেরিয়ে পড়েছে।

৭) এগারোটা নাগাদ, সুন্দরবনের হিঙ্গলগঞ্জের হাটগাছা, শীতুলিয়া রায়মঙ্গল নদীর বাঁধ ভেঙে ও জল উপচে প্লাবিত গ্রাম। অন‍্যদিকে গৌড়েশ্বর নদীর তীরে কোথাও বাঁধ ভেঙে আবার কোথাও বাঁধ উপচে গ্রামে জল ঢুকছে। পাশাপাশি মিনাখাঁর মালঞ্চ ও চৈতল একই অবস্থা বিদ্যাধরী নদীতে।

৮) সারে এগারোটা নাগাদ, বসিরহাট মহকুমা হিঙ্গলগঞ্জ ব্লক এর সাহেবখালী নদীর বাঁধ ভেঙে বিস্তীর্ণ এলাকায় জল ডুকছে।

৯) সারে এগারোটা নাগাদ, হিঙ্গলগঞ্জ ব্লক এর গৌড়েশ্বর রায়মঙ্গল গোমতী নদী বাঁধ ভেঙে বিভিন্ন জায়গায় বাঁধভাঙে জল ডুকছে।

১০) সারে এগারোটা নাগাদ, কালীনগর মসজিদ বাড়ি । বিদ্যাধরী নদী বাঁধ ভেঙে প্লাবিত হয়ে গেছে বাধের কাজ চলছে।

১১) পনে বারোটা নাগাদ, বসিরহাট মহকুমা সংগ্রামপুর পশ্চিমপাড়া 100 ফুটের মতো বাঁধ ভেঙে প্লাবিত যুদ্ধকালীন তৎপরতায় বাধের কাজ শুরু করেছে গ্রামবাসীরা।

১২) বারোটা নাগাদ, বসিরহাট এক নম্বর ব্লকের সংগ্রামপুর ইছামতির নদীর জল প্লাবিত হয়ে ভেসে গেল মাছের বাজার বিভিন্ন দোকানে নদীর নোনা জল ঢুকে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে তার সাথে সাথে এসপি অফিসের মধ্যে জল ঢুকে পড়ল।

১৩) ১২ টা বেজে ১৫ মিনিটে, হিঙ্গলগঞ্জ ব্লকের কলুপারা গ্রামে ইছামতি নদীর বাধ ওভারফ্লো হয়ে গ্রামে জল ঢুকতে শুরু করেছে আতঙ্কে এলাকাবাসী।

১৪) সারে বারোটা নাগাদ, হাসনাবাদ ব্লকের আঙ্গনারা গ্রামে ইছামতি নদীর বাধ ওভারফ্লো হয়ে গ্রামে জল ডুকতে শুরু করেছে।

১৫) বিশেষ দ্রষ্টব্য, সকালে ইয়াশ আছড়ে পড়ার পর থেকেই সুন্দরবন সংলগ্ন মিনাখাঁ ব্লকের বিদ্যাধরী নদীর বাঁধ ভেঙ্গে প্লাবিত হয়েছে বহু এলাকা। সাহেবঘেরি, মল্লিকঘেরি ও রামজয়ঘেরি সহ প্রমুখ এলাকা জলমগ্ন হয়ে পড়েছে। বাঁধ মেরামতির কাছে হাত লাগিয়েছে গ্রামবাসীরা। অন‍্যদিকে টাকি পৌরসভার ১৬ নং ওয়ার্ডের হাসনাবাদ পুরাতন বাজারে ইছামতী নদী বাঁধের ৪ ফুট উপর দিয়ে জল ঢুকে প্লাবিত গোটা বাজার। পাশাপাশি হাসনাবাদ ব্লকের কাটাখালি ও বরুণহাট এলাকায় গোমতী নদীর জল ঢুকছে। আঙনাড়া গ্রামে ইছামতী নদীর বাঁধ উপচে জল ঢুকছে।